৫ কারণে কপাল পুড়ল মেয়র নাছিরের

72

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দলীয় টিকিট পাননি বর্তমান মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন।

তার পরিবর্তে এবার মনোনয়ন পেয়েছেন দলটির চট্টগ্রাম মহানগরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী।

নাছিরের মনোনয়ন না পাওয়া নিয়ে নগরজুড়ে চলছে চুলচেরা বিশ্নেষণ।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগে বিভক্তি, অন্তঃকোন্দলের কারণে বিরক্ত কেন্দ্র। এর পেছনে মূলত নাছিরকেই দায়ী করা হয়। গত পাঁচ বছরে তার নানা কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। ফলে সব সিটি মেয়রকে তাদের পদবি অনুযায়ী মর্যাদা দিলেও নাছিরকে সেই মর্যাদা দেয়া হয়নি।

আরও পড়তে পারেন :  স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরাপত্তা পোশাক নিশ্চিতের দাবি অলির

এ ছাড়া ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও তিনবারের সাবেক মেয়র প্রয়াত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে বিরোধ বাড়তে থাকে নাছিরের।

ফলে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের রাজনীতি বিভক্ত হয়ে পড়ে মহিউদ্দিন ও নাছির বলয়ে। দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের রাজনীতিতেও এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে থাকে।

দলীয় কোন্দলের জেরে গত পাঁচ বছরে নগরে নিজেদের মধ্যে খুন হয়েছেন অন্তত পাঁচ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী। সংগঠনে এই কোন্দল জিইয়ে রাখার জন্য নাছিরকেই দায়ী করা হয়।

নাছিরের ওপর এবার আস্থা না রাখার আরও কিছু কারণ আলোচিত হচ্ছে চট্টগ্রামে। এর মধ্যে আছে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় প্রতিনিধিসভার মঞ্চ থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্ত্রী হাসিনা মহিউদ্দিনকে নামিয়ে দেয়ার ঘটনাও একটি।

আরও পড়তে পারেন :  নেতাকর্মীদের দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ২০ দলের

গত বছর অক্টোবরে চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত ওই প্রতিনিধিসভায় মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী মঞ্চে ডেকে নেন হাসিনা মহিউদ্দিনকে। কিন্তু মঞ্চের সিট প্ল্যানে হাসিনা মহিউদ্দিনের নাম না থাকায় আ জ ম নাছির তাকে নামিয়ে দেন।

যদিও মেয়র নাছির ঘটনাটিকে ভুল বোঝাবুঝি বলে পরে দুঃখ প্রকাশ করেন।

নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন আসনের এমপির সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হওয়াও কাল হয়েছে নাছিরের জন্য। মেয়র মহিউদ্দিনের জীবদ্দশায় নগরের এমপিদের সঙ্গে একটা সময় খুব সখ্য ছিল তার। এমপিদের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রেখে মহিউদ্দিনবিরোধী বলয় শক্ত করেন নাছির।

আরও পড়তে পারেন :  স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরাপত্তা পোশাক নিশ্চিতের দাবি অলির

সেই নাছিরই মেয়র হওয়ার পর দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে প্রথমে দূরত্ব তৈরি করেন। এর পর নগরের অন্য এমপিদের সঙ্গেও বিরোধে জড়ান তিনি।

এ ছাড়া বন্দরকেন্দ্রিক ব্যবসা সম্প্রসারণ ও গৃহায়ণের এক প্রকৌশলীকে চড় মারার বিষয়টিও নাছিরকে বিতর্কিত করেছে বলে ধারণা রাজনীতিবিদদের।

বিনিয়োগ বার্তা//এল//

 

আপনার মতামত দিন :

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here