সিলিন্ডার বিস্ফোরণ: মায়ের পর চলে গেল ছেলেও

46

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় আগুনে দগ্ধ একই পরিবারের আটজনের মধ্যে আরও একজন মারা গেছেন। তার নাম কিরণ মিয়া (৪৫)। ওই ঘটনায় এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো দুইয়ে।

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান কিরণ মিয়া। তার শরীর ৭০ ভাগ পোড়া ছিল। তাঁর মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ঢামেক ক্যাম্প পুলিশের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আগেই জানা গেছিল কিরণের অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। এ ছাড়া দগ্ধদের মধ্যে আবুল হোসেন ও কাওছার নামে আরও দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আরও পড়তে পারেন :  প্রথম করোনা আক্রান্ত শনাক্তের পর চট্টগ্রামের ৬ বাড়ি লকডাউন

এর আগে সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা সোয়া ১১টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নুরজাহান বেগম (৬০)।

প্রসঙ্গত, সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সাইনবোর্ড এলাকার একটি পাঁচ তলা ভবনের নিচ তলায় সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে। এ দুর্ঘটনায় দগ্ধ হন আটজন। দগ্ধ অপর ছয়জন হলেন- মো. আবুল হোসেন, মো. হিরণ মিয়া, মুক্তা), মো. কাওছার, আপন ও লিমা।

নিহত কিরণ মিয়ার স্বজন মো. ইলিয়াস জানান, তাঁর শরীরের ৭০ শতাংশ দগ্ধ ছিল। গতকালই তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিট থেকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনিস্টিটিউটে নেওয়া হয়। সেখানে তাঁকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছিল। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, তাঁর শ্বাসনালী পুড়ে গেছে, অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আরও পড়তে পারেন :  আলোকিত বাংলাদেশের মুদ্রণ সংষ্করণ স্থগিতের সিদ্ধান্তে ডিআরইউর উদ্বেগ

//এস//

আপনার মতামত দিন :

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here