রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশে থাকবে ভারত: সুষমা

0
11

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগ বার্তা:
রোহিঙ্গা ইস্যুতে অবস্থান পরিবর্তন করেছে ভারত। প্রতিবেশী এ দেশটি এখন রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশের পাশে থাকবে। দিল্লির এ বার্তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। দু’দিন আগে টেলিফোনেই কিছুটা ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি। এবার দু’জন একই ফ্লাইটে আটলান্টিক পাড়ি দেয়ার সময়ে সেই আলোচনাই হয়েছে।

এর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মিয়ানমারের সঙ্গে একই সুরে রোহিঙ্গা সংকটকে একটি ‘ইসলামী সন্ত্রাসী ইস্যু’ হিসেবে অভিহিত করেছিলেন। এখন তার অবস্থানের বড় পরিবর্তন হল।

দিল্লির একটি কূটনৈতিক সূত্র জানায়, রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক আলোচনায় বাংলাদেশ বেশ বিলম্ব করেছে। মোদি মিয়ানমার সফরে যাওয়ার আগেই বাংলাদেশের কোনো দূতকে পাঠিয়ে বাংলাদেশের সমর্থন কামনা করা হলে ভারতের প্রধানমন্ত্রী সুচির সঙ্গে আলোচনায় বিষয়টি ভিন্নভাবে তুলতে পারতেন। দেরিতে হলেও বাংলাদেশ উদ্যোগ নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বৃহস্পতিবার রাতে টেলিফোন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দিল্লির অবস্থান পরিবর্তনের কথা জানান।

ঢাকার একজন কূটনীতিক জানিয়েছেন, সুষমা টেলিফোনে শেখ হাসিনাকে জানান যে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের অবস্থানেই বিশ্বাস করে ভারত। ভবিষ্যতে মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে বলবে ভারত। এছাড়াও, বহুপক্ষীয় এবং গোপনীয় বৈঠকেও রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর কথা বলবে ভারত। এমন কথাই সুষমা স্বরাজ টেলিফোনে শেখ হাসিনাকে জানান।
এরপর নিউইয়র্ক সফরকালে শেখ হাসিনা ও সুষমা স্বরাজের একই ফ্লাইটে যাওয়ার বিষয়ে কাজ শুরু করেন ঢাকা ও দিল্লির কর্মকর্তারা। তারা আবুধাবি থেকে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের একই ফ্লাইটে আটলান্টিক মহাসাগরের উপর দিয়ে প্রায় ১৪ ঘণ্টা জার্নি করে নিউইয়র্কের জন এফ কেনেডি এয়ারপোর্টে অবতরণ করেন।
বিভিন্ন গণমাধ্যমের ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, প্রথমেই নামেন সুষমা স্বরাজ। তারপর বিমান থেকে শেখ হাসিনাকে বেরিয়ে আসতে দেখা যায়।
একাধিক কূটনৈতিক সূত্র নিশ্চিত করে, তাদের মধ্যে আলোচনায় রোহিঙ্গা ইস্যু প্রাধান্য পেয়েছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশে থাকার বিষয়ে সুস্পষ্ট বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন সুষমা স্বরাজ।
এ বিষয়ে দু’দেশের করণীয় নানা দিক নিয়েও আলোচনা হয়েছে। এর আগে আবুধাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বেশ কিছু সময় একান্তে কাটিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। সেখানে তাদের মধ্যে সৌজন্য বিনিময় হয়েছে।
আবুধাবির একটি কূটনৈতিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। প্রধানমন্ত্রী আবুধাবিতে ১৭ ঘণ্টা ছিলেন। তিনি সাগ্রিলা হোটেলে অবস্থান করেন। প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি থেকে স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় ইতিহাদ এয়ারওয়েজে রওনা হন। সুষমা স্বরাজ একই ফ্লাইটে আসেন। তারা নিউইয়র্কে পৌঁছান স্থানীয় সময় রোববার বিকাল ৪টা ২৫ মিনিটে।
আবুধাবির স্থানীয় সূত্র বলছে, আবুধাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কোনো কর্মসূচি ছিল না। শেখ হাসিনার সঙ্গে ওই দেশের সরকারের কারও কোনো কথা হয়নি। আবুধাবিতে শেখ হাসিনাকে স্বাগত ও বিদায় জানান সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান।
এদিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিউইয়র্কে জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে স্বাগত জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন। এ সময় যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম জিয়াউদ্দিন ও নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান উপস্থিত ছিলেন।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে বিমানবন্দরের সামনে স্লোগান দেন। আর প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখান বিএনপি নেতাকর্মীরা।
অপরদিকে নিউইয়র্কে সুষমা স্বরাজকে বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানান জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি সৈয়দ আকবর উদ্দিন। জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী মিশনের ওয়েবসাইটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের নিউইয়র্ক আগমনের যে ছবি দেয়া হয়েছে সেখানেও স্পষ্টতই যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম জিয়াউদ্দিন ও স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেনকে দেখা যায়।
জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ২১ সেপ্টেম্বর ভাষণ দেবেন। এ ভাষণে তিনি রোহিঙ্গা ইস্যুতে গুরুত্বারোপ করবেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতাদের সঙ্গেও রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত গড়ে তুলবেন।
শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফর সঙ্গীদের বেশিরভাগই এমিরেটস এয়ারলাইন্সে ঢাকা ছাড়েন। তারা দুবাই হয়ে নিউইয়র্ক যান। তারা স্থানীয় সময় রোববার সোয়া ২টায় নিউইয়র্কে পৌঁছান। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী আবুধাবির উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়েন কয়েক ঘণ্টা পর বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে।

বিনিয়োগ বার্তা//এল//

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here