বেনাপোল বন্দরে আনসার-শ্রমিক সংঘর্ষ

38

মো:সাহিদুল ইসলাম শাহীন,বেনাপোল(যশোর):

বেনাপোল স্থলবন্দর এ ৮ নম্বর শেডের সামনে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার বেলা ১ টার দিকে স্থলবন্দর নিরাপত্তা রক্ষী আনসার ও বেনাপোল পোর্টের হ্যান্ডলিং শ্রমিকদের সাথে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে আনসারদের রাইফেলের আঘাতে ৫ জন লেবার শ্রমিক আহত হয়। ১ জন শ্রমিককে আশংকাজনক অবস্থায় যশোর ২৫০ শয্যা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার সময় লেবার শ্রমিকেরা আনসার ক্যাম্পে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে,এতে সংঘর্ঘ আরও বেড়ে যায়। ঘটনার জের ধরে বেনাপোল স্থলবন্দরে আমদানিকৃত মালামাল লোড-আনলোড দুই ঘণ্টা বন্ধ থাকে। লেবার শ্রমিকদের আরেকটি অংশ যশোর-বেনাপোল সড়ক অবরোধ করে রাখে,পরে বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশ এসে অবরোধকারীদের সরিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

আরও পড়তে পারেন :  আলোকিত বাংলাদেশের মুদ্রণ সংষ্করণ স্থগিতের সিদ্ধান্তে ডিআরইউর উদ্বেগ

বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের সহকারী পরিচালক মামুন তালুকদার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে লেবার শ্রমিকেরা আনসার সদস্যের প্রধান এসএম সাকিবুজ্জামান শাকিব পিসিকে প্রত্যাহারের দাবি জানান। বেনাপোল আনসার প্লাটুন প্রধান কে প্রত্যাহারের আশ্বাসের ভিত্তিতে লেবার শ্রমিকরা কাজে ফিরে যান।

৮৯১ হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি খলিলুর রহমান খলিল বলেন ,দুপুরে লাঞ্চ করার সময় হঠাৎ আনসার সদস্যরা এসে আমার এক সদস্যকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করতে থাকে। এর প্রতিবাদ করলে আনসারের পিসি আমার শ্রমিক সদস্য বাদলের মাথায় রাইফেলের বাট দিয়ে আঘাত করে। তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শ্রমিকের উপর হামলার আমরা সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করছি।আনসারের পিসির বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।

আরও পড়তে পারেন :  বেনাপোলে ৪৪ জন কোয়ারেন্টাইনে; ডিসিও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের পরিদর্শন

বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন খান ঘটনার সত্যতা নিয়ে বলেন, বিষয়টি আমরা অবগত হওয়ার পর তাৎক্ষণিক ভাবে শ্রমিকদের সাথে কথা বলে এবং সুষ্ঠু তদন্ত করা হবে এরকম আশ্বাসের ভিত্তিতে শ্রমিকেরা রাস্তা অবরোধ তুলে নেন। বন্দর এলাকা জুড়ে থমথমে বিরাজ করছে।

 

বিনিয়োগ বার্তা//এল//

 

আপনার মতামত দিন :

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here