বাতিল হচ্ছে আশুগঞ্জ পাওয়ারের আইপিও

107

সরকারী মালিকানাধীন আশুগঞ্জ পাওয়ার ষ্টেশনের বন্ডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) বাতিল হচ্ছে। পাবলিক ইস্যু রুলস অনুাযয়ী আইপিওতে ন্যূনতম চাঁদা গ্রহণের শর্ত পরিপালন না হওয়ায় এমনটি হবে।

পাবলিক ইস্যু রুলস অনুযায়ী আইপিওতে কমপক্ষে ৬৫ শতাংশ আবেদন জমার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। অন্যথায় ওই কোম্পানির আইপিও বাতিলের বিধান রয়েছে।

আশুগঞ্জ পাওয়ারের বন্ডে গত ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ৬ অক্টোবর পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করা হয়। এতে কোম্পানির ১০০ কোটি টাকার চাহিদার বিপরীতে ৩৫ কোটি টাকার বা ৩৫ শতাংশ আবেদন জমা পড়েছে। যাতে কোম্পানিটি পাবলিক ইস্যু রুলস অনুযায়ী আইপিও’র অযোগ্য।

কোম্পানিটির আইপিওতে বরাদ্দকৃত ৫০ কোটি টাকার বিপরিতে যোগ্য বিনিয়োগকারীরা প্রায় ২২ কোটি টাকার আবেদন করেছে। এছাড়া অন্যান্য কোটায় ১৩ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়েছে।

এর আগে ২ জুলাই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেয়।

আশুগঞ্জ পাওয়ারের প্রতিটি ৫ হাজার টাকা ইস্যু মূল্যের ২ লাখ নন-কনভার্টেবল, রিডেম্বল, কূপন বেয়ারিং বন্ড আইপিও’র মাধ্যমে ইস্যু করার জন্য নির্ধারিত হয়েছিল। এক্ষেত্রে কোম্পানিটি ১০০ কোটি টাকা উত্তোলনের মাধ্যমে ভূমি উন্নয়ন ও সিভিল ওয়ার্ক, প্রাথমিক জ্বালানি, যানবাহন ক্রয়, প্রকৌশলী ও পরামর্শক সেবা, চলতি মূলধন এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যবহার করবে বলে জানিয়েছিল।

আশুগঞ্জ পাওয়ারের ২০১৭ সালের ৩০ জুন শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ (এনএভিপিএস) দাড়িঁয়েছে ২৬৫.৯৬ টাকায়। এ কোম্পানিটির বিগত ৫ বছরে ভারিত গড় হারে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১০.৬৩ টাকা।

আশুগঞ্জ পাওয়ারের ৭ বছর মেয়াদি বন্ডটির বার্ষিক কূপন সুদ হার ১৮২দিন মেয়াদি ট্রেজারি বিলের সুদ হারের সাথে ৪ শতাংশ মার্জিন যুক্ত হার (সর্বনিম্ন ৮.৫ শতাংশ ও সর্বোচ্চ ১০.৫০ শতাংশ) এবং অর্ধবার্ষিক মেয়াদে প্রদেয় নির্ধারন করা হয়েছিল।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজম্যান্ট এবং ব্র্যাক ইপিএল ইনভেস্টমেন্টস। এছাড়া ট্রাস্টি হিসাবে নিয়োজিত রয়েছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজম্যান্ট।

বিনিয়োগ বার্তা//এল//

আপনার মতামত দিন :

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here