পর্যটকশূন্য কক্সবাজার, ক্ষতির মুখে হোটেল মালিকরা

0
66

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগ বার্তা:

ঈদমৌসুম শেষ হওয়ার সাথে সাথে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পে আবারও মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। নেই তেমন পর্যটক, সৈকতের অনেক পয়েন্ট পরে আছে পর্যটক শূন্য। কক্সবাজার সমূদ্র সৈকতের বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে ও হোটেল মালিকদের সাথে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

এদিকে জানা যায়, ঈদের ছুটিতে চার লাখেরও বেশি পর্যটকের সমাগম ঘটলেও এখন অনেকটা ফাঁকা সৈকতপাড়া। সৈকতের লাবনী, সুগন্ধা ও কলাতলী পয়েন্টে কিছু সংখ্যাক স্থানীয় পর্যটক দেখা গেলেও নেই তেমন বাইরের পর্যটক। কক্সবাজারে ছোট-বড় প্রায় তিন শতাধিক হোটেল রয়েছে।আর এসব হোটেল এখন প্রায় পর্যটক শূন্য।

হোটেল দি কক্সটুডের কর্মকর্তা অং মারমা জানান, ঈদের ছুটিতে আমাদের সব কক্ষ বুকিং ছিল। এখন সেটা আর নেই। এখন তেমন একটা পর্যটক নেই আমাদের হোটেলে।অন্যদিকে হোটেল সী-ওয়াল্ডের ব্যবস্থাপক মুফিজুর রহমান বলেন, আমাদের হোটেল অনেকটা ফাঁকা। মাত্র ১০-১২ জনের একটি পর্যটক দল আছে। ঈদে পর্যটক থাকলেও এখন আর তা নেই।

কক্সবাজার কটেজ ব্যবাসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী রাসেল আহমেদ নোবেল বিনিয়োগ বার্তাকে বলেন, ঈদে কিছু ব্যবসা হলেও এখন পর্যটন শিল্পের সাথে জড়িত অনেকে বেকার। বর্ষাকাল হওয়ায় অনেক পর্যটক বেড়াতে আসতে চায় না। আর এতে ক্ষতির মুখে পড়েছে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প।

কক্সবাজার হোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ডায়মন্ড আবুল কাসেম জানান, অনেকটা ফাঁকা পড়ে আছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা, কলাতলী ও লাবনী পয়েন্ট। যেখানে লাখো পর্যটকের সমাগম ছিল ঈদের পরও। কিন্তু ঈদের কিছুদিন পর থেকে এসব জায়গায় আগের মতো পর্যটকদের সমাগম নেই। বর্ষা ও প্রচারের অভাবে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পে আবারও মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। আর এতে আবারও বড় ধরণের সংকটের মুখে পড়েছে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পটি।

এদিকে নিরাপত্তার বিষয়ে জানতে ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফখরুল ইসলাম বিনিয়োগ বার্তাকে জানান, পর্যটকদের নিরাপত্তায় আমাদের পর্যাপ্ত টহল জোরদার করা হয়েছে। ঈদে পর্যটকদের চাপ থাকলেও এখন সেটা নেই। এরপরও কিছু পর্যটক দেখা গেছে। এরপরও সমুদ্র সৈকতের বিভিন্ন পয়েন্টে ট্যুরিস্ট পুলিশের নিয়মিত টহল রয়েছে।

বিনিয়োগ বার্তা/জিকো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here