করোনা পরবর্তী সময়ে আরো দক্ষ শ্রমিক তৈরির আহ্বান বায়রার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগ বার্তা:

করোনা সংকট পরবর্তী সময়ে আন্তর্জাতিক শ্রম বাজারের জন্য বাংলাদেশি কর্মীদের আরো দক্ষ করে গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রটিং এজেন্সির (বায়রা) সভাপতি বেনজীর আহমেদ।

আজ বুধবার দুপরে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রটিং এজেন্সি (বায়রা) আয়োজিত এক অনলাইন মতনিনিময় সভায় তিনি এই আহ্বান জানান।

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘কোভিড-১৯ পরবর্তী পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে শ্রমিকদের আরো দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। তাহলে আন্তর্জাতিক শ্রমবাজার ধরা যাবে।’

তিনি আরো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এক কোটিরও বেশি প্রবাসী কর্মী রয়েছে যারা বিভিন্ন সময়ে উন্নত জীবনের আশায় দেশ ছেড়েছেন। প্রতিবছর ৭ লাখেরও বেশি কর্মী দেশের বাইরে কাজ করতে যান।

এছাড়া যারা দেশের বাইরে কর্মী পাঠানোর সঙ্গে জড়িত তাদের সংগঠনের ভাবমূর্তির কথা চিন্তা করে আরো স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করারও অনুরোধ জানান তিনি।

দেশের কল্যানে যারা রিক্রেটিং এজেন্সির ব্যবসার সঙ্গে জড়িত তাদের অবদানের কথা তুলে ধরে বেনজীর আহমেদ বলেন, তারা যদি টিকে থাকতে না পারে তাহলে রেমিটেন্সের উপর প্রভাব পড়বে, রিজার্ভের উপর প্রভাব পড়বে। এজন্য এই ব্যবসায় যারা জড়িত তাদেরকে সরকারের প্রণোদনা দিতে হবে।

করোনা ভাইরাসের মধ্যে ১৬’শ রিক্রটিং এজেন্সির ৪৫ হাজার কর্মীর পেছনে মাসে ৪৮ থেকে ৫০ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। তাছাড়া প্রায় এক লাখ কর্মীর ভিসা প্রসেসিংয়ের পেছনে এরই মধ্যে কম করে হলেও ১৫ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। যারা বিদেশ যেতে পারবেন কিনা সেটা অনেকটাই অনিশ্চিত বলে উল্লেখ করেন সংগঠনের মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান।

মতবিনিময় সভায় করোনা ভাইরাসের কারনে যেসব কর্মী প্রবাস থেকে ফিরে আসছেন তাদের কল্যানের জন্য বায়রা এবং প্রবাসী কল্যান ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয়কে ৩০ লাখ টাকা দেবে। তাছাড়া এরই মধ্যে বায়রা প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও কল্যান তহবিলে ৫০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছে বলেও উল্লেখ করেন শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান।

করোনা ভাইরাস সংকটের মধ্যে বিভিন্ন দেশে সরাসরি ফ্লাইট না চললেও বিশেষ ফ্লাইটে প্রবাসীরা দেশে ছেড়ে যাচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন ট্র্রাভেল এজেন্সি বাংলাদেশি কর্মীদের থেকে উড়োজাহাজের আসন পাওয়া সহজ হবে না বলে তাদের থেকে অতিরিক্ত ভাড়ায় টিকিট বিক্রী করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

বায়রার সাধারন সম্পাদক শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান বলেন, বাংলাদেশ থেকে কোন কর্মী প্রবাসে যাওয়ার সময় তার থেকে যেন অতিরিক্ত উড়োজাহাজ ভাড়া নেয়া না হয় সেজন্য প্রবাসী কল্যান মন্ত্রনালয়ের কাছে বায়রা দাবি তুলেছে। কারন তাদের বাড়তি ভাড়া দিতে হলে রিক্রুটিং এজেন্সিকে ভর্তুকি দিতে হয়।

প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রনালয় এই বিষয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের কাছে জানিয়েছে যে যেসব উড়োজাহাজে করে বাংলাদেশের কর্মীরা স্মার্টকার্ড নিয়ে বিভিন্ন দেশে কাজ করতে যান তাদের জন্য যেন বিশেষ ভাড়ার ব্যবস্থা করা হয় । এটি হলে অভিবাসন খরচ যেমন ঠিক থাকবে তেমনি কাউকে অতিরিক্ত ভাড়া দিতে হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এছাড়াও মতবিনিময় সভায় সংগঠনের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি শাহাদত হোসেনসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন

বিনিয়োগ বার্তা//এল//

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *