আমাকে সরানোর চক্রান্ত করছে দিল্লি: নেপালের প্রধানমন্ত্রী

38

দেশের নতুন মানচিত্রে লিপুলেখ, কালাপানি ও লিম্পিয়াধুরা অন্তর্ভুক্ত করায় নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র করছে ভারত। রোববার এই অভিযোগ করেছেন স্বয়ং সে দেশের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

রোববার কাঠমান্ডুতে প্রয়াত কমিউনিস্ট নেতা মদন ভাণ্ডারীর স্মরণসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী ওলি।

তবে হিন্দুস্তান টাইমস বলছে, করোনা সংক্রমণ মোকাবিলায় ওলি প্রশাসনের বিরুদ্ধে নেপালের কমিউনিস্ট পার্টির অন্দরেই অসন্তোষ দানা বাঁধতে শুরু করেছে। এ নিয়ে বিরক্ত প্রধানমন্ত্রী ওলি ভারতের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন।

নেপালের প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘নতুন মানচিত্র প্রকাশ করে সংসদের অনুমোদন নেওয়ার পর থেকেই আমাকে সরানোর জন্য ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এই পদক্ষেপের প্রেক্ষিতে নয়াদিল্লিতে প্রকাশিত সংবাদমাধ্যমের রিপোর্টে দেখতে পাচ্ছি কাঠমান্ডুর হোটেলে দফায় দফায় বৈঠক চলেছে। আর এটা বুঝতে অসুবিধা হয় না যে, কীভাবে এসব লোকজন আমাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে তৎপরতা চালাচ্ছে।’

আরও পড়তে পারেন :  ‘করোনা ১৯১৮ সালের ফ্লু মহামারীর মতো বিপর্যয়কর হতে পারে’

তিনি বলেন, ‘আমাকে কে কত তাড়াতাড়ি গদি থেকে সরাতে পারবেন, তার প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে গিয়েছে। বলা হচ্ছে, এমন অপরাধ যে করে তাকে রাখা যায় না। মানচিত্র ছাপানোও এখন অপরাধ।’

তবে নেপালি প্রধানমন্ত্রীর এই মন্তব্যে সম্পর্কে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি ভারত।

তবে নেপালের দাবি করা নতুন মানচিত্রে ভারতের বেশ কিছু অংশ অন্তর্ভুক্ত করার কারণে কাঠমান্ডুর এই উদ্যোগ ‘সম্পত্তি বাড়ানোর কৃত্রিম প্রচেষ্টা’ বলে আগেই মন্তব্য করেছে নয়াদিল্লি।

সম্প্রতি নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে নেপাল সরকারের এই পদক্ষেপের কড়া সমালোচনা করে পুষ্প কুমার দহল ওরফে প্রচণ্ডের নেতৃত্বে থাকা গোষ্ঠী। তখন কমিটির বেশিরভাগ নেতাই প্রচণ্ডকে সমর্থন জানিয়েছেন। এই কারণে গত শুক্রবার কমিটির অধিবেশন এড়িয়ে গিয়েছেন ওলি।

আরও পড়তে পারেন :  করোনা সংক্রমণে ফের রেকর্ড ভারতে, একদিনে প্রায় ৩০ হাজার

তবে রোববার ওলি দাবি করেন, ‘নেপালের সংবিধান এত দুর্বল নয় যে নতুন মানচিত্র প্রকাশ করে তা সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করার জন্য দেশের প্রধানমন্ত্রীকে সরিয়ে ফেলার স্বপ্ন দেখা যাবে।’

তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, নিজের জমি ফিরে পাওয়ার দাবি জানিয়ে নেপাল কোনও ভুল করেনি।

অলি আরও দাবি করেন, ২০১৬ সালে চীনের সাথে পরিবহন ও ট্রানজিট চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য তাকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ‘এখন নতুন মানচিত্র পার্লামেন্ট পাস হওয়ার পর তারা একই স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নেপালের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার লোভ তার ছিল না। কিন্তু দেশের স্বার্থেই তিনি ফের এই দায়িত্বে এসেছেন। এখন তিনি যদি এই মুহূর্তে পদত্যাগ করেন তবে এটি একটি ভুল দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে এবং নেপালের পক্ষে কথা বলার জন্য যে কোনও প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করতে বাধ্য হবেন।’

আরও পড়তে পারেন :  করোনা পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হতে পারে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

বিনিয়োগ বার্তা//এল//

আপনার মতামত দিন :

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here