আকিজের গাড়ি ৮ টাকায় চলে ৬০ কিলোমিটার

নতুন প্রজন্মের বাহন …… তেল ছাড়া গাড়ি চলে আজব এ শহরে। এমন প্রযুক্তির কথা বলছে আকিজ অটোমোবাইলস। আর তেল ছাড়া চলছে আকিজ ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল। আকিজের মোটরসাইকেল প্রায় সারাদিনই চলে ৮ টাকায় । যদি কিলোমিটার হিসাব করা হয় তাহলে ৮ টাকায় ৬০ কিলোমিটার চলে।

দেশের অটোমোবাইল খাত যখন দিন দিন উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। অন্যান্য অটোমোবাইল কোম্পানির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে আকিজ মোটরস। কোম্পানিটি চেষ্টা করছে দেশের মানুষকে সাশ্রয়ী খরচে গাড়ি উপহার দিতে। আর এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে আকিজ মোটরস ৭ ধরনের ইলেকট্রিক মটরসাইকেল বাজারজাত করছে।

আরও পড়তে পারেন :  পুঁজিবাজারে আজও দরপতন

যেসব ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল বাজারজাত করছে সেগুলো হচ্ছে- সম্রাট, দুর্জয়, দুর্বার, ঈগল, দুর্দান্ত, পঙ্খীরাজ, সাথী। এর মধ্যে ‘সাথী’ তিন চাকা বিশিষ্ট মটরসাইকেল।

আকিজের ইলেকট্রিক মোটরসাইকেলের বেশিষ্ট্য হচ্ছে- শব্দ ও জ্বালানী বিহীন ও পরিবেশ বান্ধব, এক চার্জে প্রায় ৬০ কিলোমিটার অর্থাৎ ৮ টাকায় সারাদিন চলে। মোটরসাইকেলগুলোর গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার। এছাড়া শক্তিশালী ও উন্নতমানের জেল ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে এসব ইলেকট্রিক মোটরসাইকেলে। এছাড়া ব্যবহার করা হয়েছে হাউড্রোলিক ব্রেক ও টিউবলেস টায়ার।

মোটরসাইকেলগুলোর মধ্যে ব্যতিক্রম ‘সাথী’। এই বাইকটির অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো, চালানো না শিখেও খুব সহজে এটি চালানো যাবে। তিন চাকার এই বাইকটিতে ভারসাম্য রক্ষা করার কোন ঝামেলা নেই।

আরও পড়তে পারেন :  বিক্রেতা নেই প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারে

আকিজ মোটরসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, ‘সাথী’ মূলত নারীদের জন্য সহজে ব্যবহারযোগ্য। এছাড়া যারা মোটরসাইকেল চালাতে জানেন না তারাও এ মোটরসাইকেলটি সহজে চালাতে পারেন। তবে কর্মজীবী, ছাত্রী বা পেশাজীবীরা এ মটরসাইকেল ব্যবহার করতে পারেন সহজে।

তারা জানান, ‘সাথী’তে ৬০০ ওয়াটের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে একবার পূর্ণচার্জে ই-বাইকটি শহরে ৫০-৫৫ কিলোমিটার এবং হাইওয়েতে ৬০-৬৫ কিলোমিটার যেতে পারে। ঘণ্টায় ৩৫ থেকে ৪৫ কিলোমিটার বেগে চলতে পারে এই মোটরসাইকেলটি। সাথী’র ব্যাটারি ক্ষমতা ৬০ ভোল্ট ও ২০ অ্যাম্পিয়ার আওয়ার। ৪-৬ ঘণ্টা চার্জে সারাদিন চলার নিশ্চয়তা মিলে তিন চাকার এই আকর্ষণীয় মোটরসাইকেলটি।

আরও পড়তে পারেন :  গ্রামীণফোনের লাইসেন্স বাতিলের নোটিস শিগগিরই প্রত্যাহার

জানা গেছে, মোটরসাইকেলটির সিটের নিচের অংশে অনায়াসে হেলমেট বা অন্যান্য জিনিসপত্র লক করে রাখার ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া রয়েছে ব্যাক গিয়ার, স্পিডো মিটার, আকর্ষণীয় হেড এবং সাইড লাইট। চুরির হাত থেকে রক্ষা পেতে মোটরসাইকেলটিতে রিমোট কন্ট্রোল লক ব্যবহার করা হয়েছে। ‘সাথী’ ২৫০ কেজি পর্যন্ত ওজন বহন করতে পারবে।

রাজধানীর তেজগাঁও আকিজ মটরসের প্রদর্শনী কেন্দ্রসহ সারাদেশে ইলেট্রিক মোটরসাইকেলগুলো পাওয়া যাচ্ছে।

বিনিয়োগ বার্তা/ বাবু/ মাসুদ রানা

 

আপনার মতামত দিন :

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here